স্রষ্টা, প্রেম ও মুক্তি

আচ্ছা জন্মের জন্য তো জননপ্রক্রিয়া লাগে, তাহলে এই সমগ্র মহাবিশ্বের সৃষ্টি জনন ব্যতীত কীভাবে হল ? আর কল্পকাহিনীর আদম ইভের থেকে মানব সৃষ্টি যদিও বা ধরে নেওয়া যায় তবে তাদের বাসস্থান ইডেন উদ্যানটির জন্মই বা হল কী ভাবে ?

যদি বলি সৃষ্টির আদি কারক হল প্রেম তাহলে কি আজগুবি বা ন্যাকামী ভেবে লেখাটা পড়া এখানেই বন্ধ করে দেবেন ? তবুও কিন্তু আমার কলম চলতেই থাকবে, রাখাল আর তার সখীদের প্রেমের রূপকথা বুনতে থাকবে অনন্ত কাল ধরে । কারণ রাখালের দেহাতীত কল্পপ্রেমেই যে কাহিনীর জন্ম হয়ে চলে কলমের নিব বেয়ে ।

কেউ কেউ প্রশ্ন করতেই পারেন রাখালের ভালবাসা কী শুধু একটা ভেক বা সহানুভুতি কুড়োনোর মার্কেটিং নয় ? নইলে সে তার রাজকণ্যাকে ফেলে কুহকিনীর দেশেই বা যাবে কেন আর তার মনের অহঙ্কারের গরাদ ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করতে না পেরে হাল ছেড়ে দিয়ে মগ দেশের রাজকণ্যার উদ্দেশ্যেই বা যাত্রা করবে কেন ?

কারণটা খুবই সোজা, স্রষ্টা যেমন তাঁর সৃষ্টির কল্পনার সঙ্গে মিলনে জন্ম দেন মহাবিশ্বের তেমনই রাখালের অস্তিত্বও বেঁচে থাকে তার সহানুভূতির ক্রোড়ে জন্ম নেওয়া কাহিনীতে । তাই তো রাখাল বার বার তার মোহন বাঁশিতে সুর তোলে, প্রেম বিলোয় যুগযুগান্ত ধরে ।

কেউ কেউ এই ক্ষণে ক্ষণে বদলানো প্রেমের রূপ দেখে অবিশ্বাসী হন, ঠিক যেমন কবিগুরুর নাম মজলিশী পি এন পি সি তে হয়ে ওঠে বউদিবাজ । তাঁদের জানা নেই প্রেম মানেই শরীর সর্বস্ব, নিদেন পক্ষে নিষীদ্ধ আলাপচারিতা বা কঞ্জুগাল সম্পর্কের লিখিত আগরে বাঁধা পড়া নয়, প্রেমের প্রকৃত স্বরূপ সহানুভূতি, প্রেমের প্রকৃত স্বরূপ অফুরন্ত স্নেহের বরষণে একটি হৃদয়কে আশ্রয় দেওয়া, প্রেম মানে অনুভূতির আদান প্রদানে দুটি হৃদয়কে আলোকিত করা ।

সে প্রেম কোনো নির্দিষ্ট একটি মানুষের অবয়বের শীকলে বাঁধা না পড়ে প্রতিটি মানুষের ভালবাসাকে আস্বাদন করতে পারে, সে প্রেম প্রেমিক প্রেমিকার বন্ধুত্ব করাতে পারে । কারণ সে প্রেমই হল মুক্তি । দেহের বা স্থাবর মায়ার অর্গল ভেঙ্গে বিশাল ব্যাপ্তিতে জঙ্গমত্ব প্রাপ্তি । হাতে হাতের আগেও মনের সঙ্গে মনের পরিচিতি ।

প্রেমের নিয়ন্ত্রণ যদি সত্যিই হরমোনের হাতে থাকত, তাহলে দেহজ তৃষ্ণার নিবৃত্তির সাথে সাথেই প্রেম এবং সহানুভূতিরও নিবৃত্তি ঘটত ।

আর প্রেমের কোনো নির্দিষ্ট গঠন হয়না বলেই অকলঙ্কিত স্রষ্টাচরিত্র বিবাহিতা বান্ধবী বা নিজের অর্ধেক বয়ঃক্রমের খুকীর প্রেমরসে সিক্ত হয়ে চিদানন্দসাগরে অবগাহন করতে পারে ।

এই প্রেমই যে সৃষ্টির আকর, প্রেমিকার হৃদয়দর্পণ হতে প্রতিফলিত স্বীয় মননের সহানুভূতি ।

এই তো শিকল ভাঙা, এই তো পূর্ণতা , এই তো মুক্তি ।

**********

বহু দিনের অব্যাবহারে বন্ধ পুরোনো ভোডাফোন মোবাইলের হঠাত দেওয়া চার্জটা একদিন আবার নীরব থেকে নিঃশেষিত হয়ে যাবে । শেষ হবে আরেকটা অধ্যায় ……জন্ম হবে নতুন কাহিনীর ।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s